মেধা এবং সৃজনশীলতার খেলাঘর হল স্কুল। প্রতি বছর এক ঝাঁক শিশু তাদের অপরিমেয় সম্ভাবনা নিয়ে এই স্কুলে ভর্তি হয়। তাদের পরিপূর্ণ মানুষ হিসেবে গড়ে তোলায় অঙ্গীকারাবদ্ধ এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিবেদিতপ্রাণ শিক্ষকগণ নিবিড় পরিচর্যা ও অনুশীলনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের জ্ঞান ও সৃজনশীলতার বিকাশে সবসময় সচেষ্ট থেকে তাদের সাফল্যের দ্বার প্রান্তে পৌঁছে দেন। পাঠ্য পুস্তক বা পুঁথিগত শিক্ষার বাইরে শিশুর কল্পনা উজ্জীবিত করতে হলে শরীরচর্চা, সংগীত, শিল্পকলা, সাহিত্য, বিতর্ক ইত্যাদি পাঠ সহযোগী বা পাঠ বহিভূত কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করতে হয়। একজন মানুষ প্রাতিষ্ঠানিক জ্ঞান যতই অর্জন করুক না কেন কল্পনা শক্তি না থাকলে তার পক্ষে নতুন কোন সৃষ্টি সম্ভব নয়। তাই নিজস্ব বা মৌলিক চিন্তা ভাবনার সামর্থ্য অর্জনের জন্য শিক্ষার্থীরা যত বেশি পড়াশুনা করবে তত তাদের মুক্ত বুদ্ধি ও মুক্ত চিন্তা প্রস্ফুটিত হবে। মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল এন্ড কলেজ ইতোমধ্যে বহুবার দেশের জাতীয় পরীক্ষা গুলোর ফলাফলের মাধ্যমে নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করেছে। স্কুলের সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীবৃন্দ নিরন্তর আরো উন্নত ফলাফলের জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছে। কিন্তু এই স্কুলের শক্তি শুধু প্রথাগত ফলাফলের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। একেবারে ছোট থেকেই স্কুলের সকল শিক্ষার্থীকে নানাবিধ কর্মকান্ডে উৎসাহিত এবং সমৃদ্ধ করা হয়।

 

প্রফেসর ড. ম. তামিম
চেয়ারম্যান, বোর্ড অব ট্রাস্টিজ
মোহাম্মদপুর প্রিপারেটরি স্কুল এন্ড কলেজ